শ্রীপুরে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি প্রার্থী! তৃণমূলে হতাশা!


Admin   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

প্রতিবেদক গাজীপুর:

গাজীপুরের শ্রীপুর পৌর এলাকার ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন। তাকে প্রধান আসামি করে শ্রীপুর থানায় গণধর্ষণের অভিযোগে গত বছরের [১২ অক্টোবর ২০১৯ ইং] সালে একটি (মামলা-৪৮) দায়ের করেন ওই ধর্ষিতা (তৎকালীন) অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ।

ধর্ষণের বিচার চাওয়ায় ওই গৃহবধূর বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় বহেরারচালা এলাকার প্রভাবশালী তোফাজ্জল হোসেন। এবিষয়ে জাতীয় দৈনিক পত্রিকা “আলোকিত বাংলাদেশ, আজকালের খবর, বিজনেস বাংলাদেশ”সহ একাধিক গণমাধ্যমে [১৭ অক্টোবর ২০১৯ ইং] সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

এছাড়াও তার বিরুদ্ধে ওই ধর্ষিতা বাদী হয়ে গাজীপুর জেলা আদালতে জামানতের টাকা উদ্ধারের মামলা দায়ের করেন। যা বর্তমানে চলমান। জোরপূর্বক স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে ওই নারীর জমি দখল করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

গণ ধর্ষণের মামলায় তোফাজ্জল সহ কাউকেই গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ, এমন অভিযোগ এনে ওই ধর্ষিতা নারী আক্ষেপ করে বলেন, তোফাজ্জলের ভাই আজিজুল পুলিশ সদস্য থাকাই আমার মামলা নিতে অনেক তালবাহানা করেছে পুলিশ। মামলার পর পরই আমাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করে তৎকালীন সময়ে শ্রীপুর থানায় কর্মরত এক পুলিশ সদস্য।

স্মরণীয়: ধর্ষিতা ওই নারী তোফাজ্জল হোসেনের দোকান ভাড়া নিয়ে কাপড়ের ব্যবসা শুরু করেন। জামানত হিসেবে তোফাজ্জলকে সাত লাখ পঞ্চাশ টাকা দেওয়া হয়। জামানতের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে অন্তঃসত্ত্বা ওই নারীর ব্যবসা কার্যক্রম চালানো সম্ভব না হওয়ায় দোকান বন্ধ করে দেয়। একপর্যায়ে টাকা দিতে তালবাহানা শুরু করলে আদালতে মামলা দায়ের করেন। পরে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করে তোফাজ্জল ও সঙ্গীয় কয়েকজন। তারই ধারাবাহিকতায় [০৪ অক্টোবর ২০১৯ ইং] গণধর্ষণের শিকার হন ওই নারী। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, ইন্টারনেটে ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় তোফাজ্জল।

তৃণমূলের আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, তোফাজ্জল বিএনপির একজন ছোটখাটো কর্মী ছিলো। এখন দল পরিবর্তন করে আওয়ামী লীগ হয়ে গেছে। আবার বিএনপি ক্ষমতায় আসলে আবার বিএনপি হয়ে যাবে। এরা দলে কোন্দল সৃষ্টি করে। যদিও বিএনপিতে যোগদানের কোন লিখিত তথ্য তারা দিতে পারেননি।

এছাড়াও বলেন, দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগের সততার রাজনীতি করলেও নব্য আওয়ামী লীগে যোগদান কর্মীদের গুণগান বেশি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মূলদলে যেন কোন আগাছা না থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখার জন্য গাজীপুর-৩ সংসদীয় আসনের মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন সবুজ এমপির কাছে দাবি জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে তোফাজ্জল হোসেন বলেন, গণধর্ষণের বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা। মামলাটি মিথ্যা প্রমাণিত হলে আদালত থেকে মামলাটি নিষ্পত্তি হয়েছে। আদালত থেকে মহিলার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ওই মহিলার বিরুদ্ধে আমি আদালতে একটি মামলা করেছি আমার চেক উদ্ধারের জন্য।

শ্রীপুর পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম বলেন, গত এক বছর পূর্বে গণধর্ষণের মামলা হয়েছিল, মামলাটি সম্ভবত শেষ হয়ে গিয়েছে। মাঠে আমাদের মনিটরিং টিম কাজ করতেছে। আমরা বিষয়টি আরও পর্যবেক্ষণ করবো।

শ্রীপুর পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম মোল্লা বলেন, পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন চলছে, যে কেউ প্রার্থী হতে পারে। তবে আমাদের এমপি মহোদয়ের নির্দেশে জামাত, বিএনপি, সন্ত্রাস চাঁদাবাজ কমিটিতে থাকতে পারবে না। এ বিষয়ে আমরা সচেতন রয়েছি।

গাজীপুর জেলা আদালতের আইনজীবী এডভোকেট মোহাম্মদ কামাল হোসাইন জানান, গণধর্ষণের শিকার ওই নারীর মামলাটি বর্তমানে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে (২৩৬/২০) বর্তমান চলমান রয়েছে। খুব শীঘ্রই অপরাধীদের বিচার কার্যক্রম শুরু হবে।